বন্ধ হল ঐতিহ্যবাহী 'সিরাজ', মে দিবসেই কর্মহীন অনেক শ্ৰমিক

আজ মে দিবস। আজ শ্ৰমিক দিবস। আন্তর্জাতিক এই শ্রমদিবসে ছুটি মোটামুটি পৃথিবীর প্রতিটি সভ্য দেশের কল-কারখানা। আর সেই শ্ৰমিক দিবসে চিরতরে বন্ধ হয়ে গেল কলকাতার ঐতিহ্যবাহী হোটেল সিরাজ। কর্মহীন হয়ে পড়লেন পি[রায় ১৫ জন কর্মী।
কর্মীরা পাবেনা কোনোরকম পুনর্বাসন। সিরাজের দমদম যশোহর রোডের শাখাটি বন্ধ হয়ে যাওয়ায়  স্বেচ্ছাচারী মালিক শ্রেণীর প্রতি ক্ষোভ উগরে দিয়েছে কর্মীরা। উল্লেখ্য, যাদবপুর, কেষ্টপুর, ফুলবাগান, হাওড়া, শ্যামবাজার, মানিকতলা, ডেকার্স লেন, বাঘা যতীন শ প্রায় ১৫ টি সিরাজের শাখা বন্ধ হয়ে গিয়েছে গত ২ বছরে। মেলেনি কাজ, মেলেনি পুনর্বাসন। আজ ফের একবার নোটিস ছাড়াই সিরাজের আরও একটি শাখা বন্ধ হয়ে যাওয়াটা মেনে নিতে পারছেনা গরিব শ্রমিকরা।
এটা আজ সিরাজের ঘটনা। গুটিকয়েক শ্রমজীবী মানুষের কর্মহীন হয়ে পড়ার ঘটনা মাত্র। কিন্তু আদতে গোটা দেশ, গোটা রাজ্যের অবস্থায় এমন। আজ জুট মিল, কাল গেঞ্জি মিল, পরশু কাঠ কল বন্ধ হয়েই চলেছে। আর কর্মহীনতার বন্ধ্যাত্ব কাটিয়ে উঠতে পারছেনা শ্রমজীবী মানুষ। আমরা রোজ ববি আমরা আধুনিক, আমরা রোজ ভাবি আমরা উন্নয়নশীল কিংবা উন্নত। আদতে উন্নত আমরা সেদিনই হব, যেদিন একটা মে দিবসের ভোর সূর্যদয়ের সাথে সাথে প্রতিটা শ্ৰমিক, প্রতিটা মজুর হাসবে, আর 'হলিডে' মানাবে।

Popular posts from this blog

নেই ব্যবসা, নেই বাক স্বাধীনতা | টানা তিন মাসে পড়ল কাশ্মীরের সাধারন মানুষের বন্দিদশা জীবন

এলিয়েনদের পৃথিবীতে ডাকতেই নাকি তৈরী হয়েছে নাজকা লাইন !

উলপিটের রহস্যময় সবুজ শিশু, যারা বেঁচে ছিল কেবল শিমের বীজ খেয়ে!