এসএসসি পরীক্ষার্থীদের অনশন না দেখিয়ে তৃণমূল প্রার্থীদের লাঞ্চ-ব্রেকফাস্ট দেখাচ্ছে এবিপি আনন্দ - The Explorateur

Tuesday, March 19, 2019

এসএসসি পরীক্ষার্থীদের অনশন না দেখিয়ে তৃণমূল প্রার্থীদের লাঞ্চ-ব্রেকফাস্ট দেখাচ্ছে এবিপি আনন্দ


এসএসসির অনশন প্রসঙ্গে এবার মুখ করলেন বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু ।চাকরিপ্রার্থীদের পাশে দাঁড়িয়ে বিমানবাবু বলেন, ‘‘আজ টানা ১৯ দিন এসএসসি-র চাকরিপ্রার্থীরা অনশন চালিয়ে যাচ্ছেন ৷ চাকরির দাবিতে না খেয়ে পথে বসে রয়েছেন  এসএসসি চাকরিপ্রার্থীরা ৷ অনশনরতদের নিয়ে সংবাদ মাধ্যমের একাংশ লেখালেখি করলেও অনেকেই কিছুই করছে না৷ বরং তাঁদের কাছে প্রধান গুরুত্ব হয়ে দাঁড়িয়েছে, প্রার্থীরা কে কী খাচ্ছেন, কীভাবে নিজেকে ফিট রাখছেন৷ কিন্তু, না খেয়ে যাঁরা রাস্তায় পড়ে রয়েছে, তাঁদের নিয়ে কেন কিছু বলা হচ্ছে না? আমার মনে হয়, তাঁদের দাবিগুলিও সংবাদমাধ্যমে উঠে আসে উচিত৷’’ তবে, এদিন বিমানবাবু সংবাদ মাধ্যমকে কাঠগড়ায় তুললেও ‘আজ বিকেল’ সহ বাংলার প্রায় সমস্ত সংবাদমাধ্যমই অনশনরত এসএসসি-র চাকরিপ্রার্থীদের সমস্যা তুলে ধরেছে৷

অন্যদিকে, অনশনকারত এসএসসি-র চাকরিপ্রার্থীদের পাশে দাঁড়ালেন কবি শঙ্খ ঘোষ৷এসএসসি যুব ছাত্র অধিকার মঞ্চের প্যাডে লিখেছেন, “রোদ, বৃষ্টি, ঝড়ে এঁদের মধ্যে জনা পঞ্চাশেক গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় স্থানান্তরিত হয়েছেন। শহরের প্রায় কেন্দ্রস্থলে সবারই চোখের সামনে এমনও যে ঘটে চলেছে, তার জন্য রাজ্যবাসী হিসেবে লজ্জা হওয়া উচিত৷’’

বিগত ১৬দিন ধরে রোদ ঝড় জলকে উপেক্ষা করেই চলছে এসএসসির অনশন ।আন্দোলনকারীদের দাবি, বিভিন্ন জেলার স্কুলে স্কুলে বহু পদ খালি। তা সত্ত্বেও নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত বহু শিক্ষকপদে প্রার্থীর নাম ওয়েটিং লিস্টে তুলে এসএসসি-কর্তৃপক্ষ চুপচাপ বসে আছেন। শূন্য পদের বিষয়টি ‘আপডেট’ করা হচ্ছে না। ফলে প্রার্থীরা চাকরি পাচ্ছেন না। অবিলম্বে তাঁদের নিয়োগের ব্যবস্থা করার দাবিতে মেয়ো রোডে প্রেস ক্লাবের সামনে বসে অনশন করছেন অন্তত ৪০০ চাকরিপ্রার্থী। অসুস্থ হয়ে পড়েছেন ৫৫ জন অনশনকারী। যদিও কমিশনের এ সবে হেলদোল নেই। 
Loading...