মুখ্য মন্ত্রীর বাড়িতেই সারদার টাকা ছিল । স্বীকারোক্তি কুনালের - The Explorateur

Sunday, February 17, 2019

মুখ্য মন্ত্রীর বাড়িতেই সারদার টাকা ছিল । স্বীকারোক্তি কুনালের

অনির্বান আচার্য্য,ওয়েবডেস্ক: সারদা কর্ণধার সুদীপ্ত সেন শহর ছেড়ে পালানোর সময় তাঁর সংবাদমাধ্যমগুলি চালানোর টাকা কে দিত, প্রথম থেকেই বিস্তর প্রশ্ন উঠেছে এনিয়ে। সিবিআই সেই রহস্যের হদিশ এখনও করতে পারেনি। এর মধ্যেই সুদীপ্তর অন্তর্ধানের পর কালীঘাটে স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রীর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়ি থেকেই সারদার চ্যানেলগুলির জন্য টাকা পাঠানো হত বলে এ দিন দাবি করে নতুন করে বিতর্ক বাড়িয়ে দিলেন কুণাল ঘোষ৷

সারদা কাণ্ডে মুখ্যমন্ত্রীর নাম জড়ানোর চেষ্টা তাঁর কাছে নতুন কোনও বিষয় নয়৷ কুণাল ঘোষ সোমবার ভরা এজলাসে যে অভিযোগ করলেন, তা নিয়ে পরবর্তীকালে মুখ্যমন্ত্রীকে নানা অপ্রীতিকর প্রশ্নের মুখে পড়তে হতে পারে বলে মনে করছে নানা মহল৷ কারণ আগের করা অভিযোগ থেকে এর গুরুত্ব অনেক বেশি বলেই মনে করছেন আইনজ্ঞরা৷

মুখ্যমন্ত্রীর পাশাপাশি এদিনও মদন মিত্রের প্রসঙ্গ তোলেন কুণাল৷ তাঁর অভিযোগ, ‘মদন মিত্রকে এই মামলায় ডাকা হচ্ছে না কেন? একজন জামিন নেবেন, তাঁর ছেলের বিয়েতে আবার বিচারপতির কাছে বিয়ের কার্ড পাঠিয়েছিলেন৷ আমি অত বড় লোক নই৷ আমি অসত্‍ সঙ্গে পড়েছিলাম৷ তার প্রায়শ্চিত্ত করছি৷ কিন্তু আমার কাছে তথ্যপ্রমাণ আছে৷ উনি (সুদীপ্ত) বলতে পারেন, টাকা নেই৷ কিন্তু তাঁর চ্যানেল তিনি না-থাকার সময় কী ভাবে চলছিল?’

কুণাল অভিযোগ করেন সিবিআই তদন্তও পুরোপুরি প্রভাবিত হচ্ছে বলে। তিনি আরও বলেন, ‘সিবিআইয়ের হাতে তথ্যপ্রমাণ আছে৷ রোজ সাক্ষ্যপ্রমাণ নষ্ট হচ্ছে৷ বাইরে থেকে সব প্রমাণ নষ্ট করে ফেলা হচ্ছে৷ যখন আমার বিচার শুরু হবে, তখন দেখব সব সাজানো সাক্ষী দাঁড় করানো হয়েছে৷

বিচারক কুণালের বক্তব্য শুনলেও কোনও মন্তব্য করেননি৷ সিবিআই সূত্রের খবর, সুদীপ্তর অন্তর্ধানের পর বিপুল পরিমাণ টাকা এক শীর্ষস্থানীয় তৃণমূল নেতার বাড়িতে রাখা ছিল বলে ইতিমধ্যেই বিভিন্ন সূত্র থেকে তাঁরা জানতে পেরেছেন৷ তার মধ্যে প্রায় দু’শো কোটি টাকা এক প্রাক্তন তৃণমূল নেতাকে দেওয়া হয়েছিল৷ পরে অবশ্য তিনি দল ছেড়ে দেন৷ ওই টাকা থেকেই সারদার একটি কাগজ, দু’টি চ্যানেল চালানো হত বলেও অভিযোগ উঠেছে৷
Loading...